Longleat Safari Park-Gurukul in UK

Longleat Safari Park-Longleat House-Mohabbatein Shooting Place

Longleat Safari Park-Longleat House-Mohabbatein Shooting Place

২০০০ সালের বিখ্যাত হিন্দি ছবি মহব্বতের গুরুকুল বলে দেখানো হয়েছিল যে বাড়িটি সেটি আসলে ইংল্যান্ডের লংলিট হাউস।যে বাড়িটি সাক্ষী হয়ে আজও দাঁড়িয়ে রয়েছে এক সাধারণ মানুষের অদম্য ইচ্ছায় রাজা হয়ে ওঠার ইতিহাস নিয়ে, প্রথম ও দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধের অভিজ্ঞতা নিয়ে।৯০ এর দশকের সাড়া জাগানো তরুণ তরুণীদের মধ্যে প্রথম ভ্যালেন্টাইন ডে কে বিখ্যাত করানোর সিনেমা মহব্বতে।সিনেমাটি বহুবার দেখেছি আমরা অনেকেই।আর যতবারই দেখেছি অবাক হয়েছি,জানতেও ইচ্ছা হয়েছিল যে কোথায় এই বাড়িটা।অনেকেই ভেবেছি সেট হয়ত।কিন্তু দেশের  গণ্ডি পেরিয়ে বিদেশে যে এই বাড়িটির অবস্থান তা সেদিন বুঝলাম যেদিন  ইংল্যান্ডের লংলিট সাফারি পার্কের উদ্দেশ্যে প্রবেশ করতেই দূর থেকে চোখে পড়েছিল এই বাড়ি আর মুখ থেকে খুব স্বাভাবিক ভাবেই বেরিয়েছিল গুরুকুল!!

Longleat Safari Park-Longleat House-Mohabbatein Shooting Place

Longleat Safari Park-Longleat House-Mohabbatein Shooting Place

ব্রিটেনের এলিজাবেথীয় স্থাপত্যের অন্যতম নিদর্শন এই বাড়িটি নির্মাণ করা হয় ১৫৬৮ থেকে ১৫৮০ সালের পরিসরে, স্যার জন থিনের উদ্যোগে।তার অন্যতম উদ্দেশ্য ছিল Elizabeth-I কে খুশী করা।বাড়ির মূল নকশা করেছিলেন রবার্ট স্মিথ সন সহ তিনি নিজেও। 


১৫৪০ সালে ৫৩ পাউন্ড দিয়ে তিনি বাড়িসহ ৬০ একর জমি কিনেছিলেন। একই জায়গায় আগের বাড়িটি ১৫৬৭ সালে আগুনে পুড়ে যাবার পর আবার ১২ বছর ধরে চলে বর্তমান বাড়িটির নির্মাণ কার্য।বাড়িটির স্থাপক জন থিন ছিলেন রাজপরিবারের করণিক।কিন্তু তিনি ছিলেন উচ্চাকাঙ্খী ও সৌখিন।নিজের বুদ্ধিবলে ও সঞ্চিত পুঁজির ভিত্তিতে তিনি এই বাড়ি তৈরি করেছিলেন সমাজে নিজের সম্মান মর্যাদা বৃদ্ধির উদ্দেশ্য।। রাজ পরিবারের না হয়েও তার কৃতকর্মের মাধ্যমে তাক লাগবে রাজ পরিবার সহ সকল উচু বিত্তর,নিজেকে তাদের সমকক্ষ করে তোলা এই ছিল তার মনোবাঞ্ছা।তিনি আরও চেয়েছিলেন রাণী এলিজাবেথকে এই বাড়িতে সাদরে আপ্যায়ন করতে।তার সে মনোবাঞ্ছা পূর্ণও হয়েছিল।তার এই বাড়ির সৌন্দর্যের কথা ছড়িয়ে পড়তেই সেই সুদিন এলো তার কাছে যেদিন রাণী নিজেই আস্তে চাইলেন তার বাড়িতে ও থাকতে চাইলেন।কিন্তু ঠিক সেই মুহূর্তে রাণীকে খুশী করার মতো অভ্যর্থনায় তিনি প্রস্তুত ছিলেন না।তাই বাড়ি কাজ অসম্পূর্ণ এই অজুহাতে সেবারের রানীর আগমন সাময়িক স্থগিত রাখেন তিনি।নিজেকে প্রস্তুত করে ১৪০ পাউন্ড দিয়ে রানীর জন্য কিনলেন অপূর্ব এক নেকলেস,যা দিয়ে করলেন রানীর অভিবাদন। একে তো লংলিট হাউস এর সৌন্দর্য্য সাথে অপ্রত্যাশিত অভ্যর্থনায় আপ্লুত রাণী।দীর্ঘদিনের প্রয়াস তার সফলতা পায়।মুগ্ধ রানীর উচ্ছাসিত প্রশংসাই থিন পরিবারের এই হাউসকে রাতারাতি বিখ্যাত করে তুলেছিল গোটা ব্রিটেনে।

Longleat Safari Park-Longleat House-Mohabbatein Shooting Place

বাড়িটিতে আছে ১২৮ টি ঘর,যার সাইজ সে যুগীও ব্রিটিশ হাউসের প্রায় ৪০গুন,আছে রাজকীয় কায়দার সব আসবাব, ফায়ার প্লেস,ওক টেবিল,ওয়েল পেন্টিংস। আছে ৭টি লাইব্রেরী যেগুলিতে স্থান পেয়েছে ৪০,০০০ এরও বেশি অমূল্য বই।ইউরোপের বৃহত্তম প্রাইভেট লাইব্রেরি ও এটি। 

Longleat Safari Park-Longleat House-Mohabbatein Shooting Place

প্রথম বিশ্ব যুদ্ধে বাড়িটির কিয়ত অংশ মিলিটারি হসপিটাল এর উদ্দেশ্যে ব্যাবহার হয়েছিল ও দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে ব্যাবহার করা হয়েছিল গার্লস স্কুল হিসাবে।১৫৮০ সালে তার মৃত্যুর পরবর্তীতে বংশ পরম্পরায় চলতে থাকে এই পরিবারের পালাবদল। বলাবাহুল্য বাড়িটির রক্ষনাবেক্ষন খরচ সীমাতিত।সেই ব্যয় ভার  খানিকটা আদায়ের উদ্দেশ্যেই এই পরিবারের হেনরী ফ্রেডরিক থিন ১৯৪৯ সালে প্রথম কোনো এই ধরনের বাড়িকে জনসাধারনের জন্য উন্মুক্ত করে দেন।১৯৬৬ সাল থেকে শুরু হয় সাফারি পার্ক।আফ্রিকার বাইরে প্রথম সাফারি পার্ক এটি।সফলতা পায় তার এই পরিকল্পনা। জনপ্রিয়তা সীমা ছড়ায় বাড়ি সহ সাফারি পার্কের।বর্তমানে এটি এই এস্টেটের আয়ের অন্যতম উৎস।লংলিট মেজটি (Maze)হলো 'Longest Maze in the World'। এছাড়াও রয়েছে অ্যাডভেঞ্চার পার্ক,বোট রাইড, টয় ট্রেন পরিষেবা।সাফারি পার্কে চাক্ষুষ করতে পারেন সিংহ,বাঘ, চিতা,নেকড়ে, জিরাফ, জেব্রা, গন্ডার,হাতি সহ আরো অনেক পশুকেই নিজের সামনে খোলামেলা ভাবে ঘুরে বেড়াতে দেখতে পাবেন,খাঁচায় বন্দী দশায় না।

Longleat Safari Park-Longleat House-Mohabbatein Shooting Place

Longleat Safari Park-Longleat House-Mohabbatein Shooting Place

Longleat Safari Park-Longleat House-Mohabbatein Shooting Place

Longleat Safari Park-Longleat House-Mohabbatein Shooting Place

Longleat Safari Park-Longleat House-Mohabbatein Shooting Place

স্যার জন থিন চিরস্মরণীয় হয়ে রইলেন তার কাজের মাধ্যমে।তার বংশধরদের জন্য রেখে গেলেন প্যালেস সহ রাজসিক সম্মান। ১৯ এর দশকে এই বাড়ির অভ্যন্তরীণ কাঠামোয় অনেক পরিবর্তন আনা হলেও বৃহদাকার হল ঘরটি অবিকল রাখা হয়।লোক শ্রুত স্যার জন থিন আসেন তার বাড়ি পরিদর্শনে আর তখন যাতে তিনি চিনতে পারেন তার নিজের পছন্দের সেই হল ঘরটি।

Google Map:
https://goo.gl/maps/dqFscUrvV6XPbH6X6

Address: 
Longleat, The Estate Office, Warminster BA12 7NW, United Kingdom

মন্তব্যসমূহ

Popular Posts

Top 10 Rajbari near Kolkata-Zamindar Houses in Bengal-Heritage Home Stay-Dayout Plan-Weekend Tour

Garalgacha Jamidar Bari-Garalgacha Babuder Bari-Bonedi Barir Pujo

Gobardanga Jamidar Bari-Prasannamoyee Kali Mandir-Gobardanga Kalibari

Gobardanga Prasannamoyee Kali Mandir-Gobardanga Kalibari